সর্বশেষ

চা-বাগান ও হাওর এলাকায় করোনায় ক্ষতিগ্রস্তদের মাঝে জরুরি সুরক্ষা সামগ্রী প্রদান

ইনস্টিটিউট অব ডেভেলপমেন্ট এফেয়ার্স (আইডিয়া)র আয়োজনে ও চাইল্ডফান্ড কোরিয়া এর অর্থায়নে এবং এডুকো-এর সার্বিক সহযোগিতায় “ইমারজেন্সি ক্যাশ/ফুড এন্ড হাইজিন ম্যাটেরিয়াল সাপোর্ট ফর দি কোভিড-১৯ এ্যাফেক্টেড মোষ্ট ভারনারাবেল চিল্ড্রেন এন্ড কমিউনিটিস ইন বাংলাদেশ” প্রকল্পের মাধ্যমে কোভিড-১৯-এ ক্ষতিগ্রস্তদের মাঝে জরুরি স্বাস্থ্য সুরক্ষা সামগ্রী সহায়তা প্রদান করা হয়।

আইডিয়া আলোয়-আলো প্রকল্প শ্রীমঙ্গল উপজেলার ০৭নং রাজঘাট ইউনিয়নের ০৬ টি চা-বাগান এলাকায় তাদের কার্যক্রম বাস্তবায়ন করছে। এরই ধারাবাহিকতায় আলোয়-আলো প্রকল্প কেজুরীছড়া চা-বাগান এলাকায় ৬১৫ টি দরিদ্র ও হত-দরিদ্র পরিবারের মাঝে জরুরী স্বাস্থ্য সুরক্ষা সামগ্রী বিতরন করে। আইডিয়া আলোয়-আলো প্রকল্পের প্রকল্প সমন্বয়কারী আমিনুর রহমান এর সভাপতিত্ত্বে জরুরী স্বাস্থ্য সুরক্ষা সামগ্রী বিতরণ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ডিনষ্টোন ডিভিশন এর ডিজিএম মো: হুমায়ুন কবির মজুমদার।

বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বালিশেরা ভ্যালির কার্যকরী পরিষেদের সভাপতি বিজয় হাজরা।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে মো: হুমায়ুন কবির মজুমদার বলেন, আইডিয়া আলোয়-আলো প্রকল্প যে উদ্যোগ গ্রহণ করেছে তা আসলেই প্রশংসার দাবিদার। বর্তমান পরিস্থিতিতে সকলেরই দায়িত্ব রয়েছে সমাজের জন্য কিছু করার। অদৃশ্য এ ভাইরাসকে মোকাবেলা করতে হলে আমাদের স্বাস্থ্য বিধিগুলো মেনে চলতে হবে। আলোয়-আলো প্রকল্প যে সকল জরুরী স্বাস্থ্য সুরক্ষা উপকরণ সামগ্রী বিতরণ করছে সেগুলোর যথাযথ ব্যবহার করতে হবে। বিশেষ অতিথির বক্তব্যে বালিশেরা ভ্যালি কার্যকরী পরিষদের সভাপতি বিজয় হাজরা তার সংক্ষিপ্ত বক্তব্যে বলেন, চা-বাগানের শ্রমিক বাঁচলে বাগান বাঁচবে, আবার বাগান বাঁচলে শ্রমিক বাঁচবে তাই শ্রমিদের সুরক্ষার জন্য এধরনের ভালো উদ্যোগকে অবশ্যই আমরা স্বাগত জানাচ্ছি।

উল্লেখ্য যে, আইডিয়া আলোয়-আলো প্রকল্প কেজুরীছাড় চা-বাগান, বর্মাছড়া চা-বাগান, উদনাছড়া চা-বাগান, বিদ্যাবিদল চা-বাগান, হরিনছড়া চা-বাগান এবং পুটিয়াছড়া চা-বাগান (ছনখলা)-এ মোট ২৫০০টি দরিদ্র ও হত-দরিদ্র পরিবারের মধ্যে জরুরী স্বাস্থ্য সুরক্ষা সামগ্রী বিতরনের উদ্যোগ গ্রহণ করেছে। এই প্রকল্পের আওতায় এডুকো চারটি সহযোগী সংস্থা আইডিয়া, এমসিড, বিটিএস ও প্রচেষ্টা-এর মাধ্যমে শ্রীমঙ্গল উপজেলায় মোট ৯২৬৯ টি পরিবারকে সহায়তা প্রদান করবে।

এছাড়াও অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন, স্থানীয় জনপ্রতিনিধি অমর গোয়ালা, পঞ্চায়েত সভাপতি মহেশ্বর দাস, প্রকল্প কর্মকর্তা জাহিদুল ইসলাম ভূঁইয়া, সিরাজুল ইসলাম ও তৌহিদুর রাহমান, হিলু কান্তি রায়, কমিউনিটি প্রোমোটার মুক্তা নায়েক, মজেশ সিং বাড়াইক প্রমূখ।

50% LikesVS
50% Dislikes
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ