সর্বশেষ

সামাজিক সংগঠন “আলোকিত জগন্নাথপুর” এর উদ্যোগে মাস্ক ও লিফলেট বিতরণ

 

সামাজিক সংগঠন “আলোকিত জগন্নাথপুর ” এর উদ্যোগে মহামারী কোভিড-১৯ করোনাভাইরাস প্রতিরোধে জগন্নাথপুরে মাস্ক ও সচেতনতামূলক লিফলেট বিতরণ করা হয়েছে ।

“একটু সতর্কতা, একটু সচেতনতা ,রুখে দিতে পারে করোনা শক্তি, আনবে আমাদের মুক্তি,, এই শ্লোগানকে সামনে রেখে ১৬ ই জুন মঙ্গলবার সুনামগঞ্জের জগন্নাথপুর উপজেলার আটটি ইউনিয়ন এর বিভিন্ন হাট-বাজার, গুরুত্বপূর্ণ পয়েন্ট ও পৌর শহরের বিভিন্ন পয়েন্টে সামাজিক সংগঠন ” আলোকিত জগন্নাথপুর ” এর উদ্যোগে মেজর(অবঃ) সৈয়দ আশফাক শামী, এম এ কয়েস, যুক্তরাজ্য প্রবাসী দুলদুল বারী, আঃ নূর, আয়াজ, জয়নুল হক ও ফয়জুল ইসলাম এর সার্বিক সহযোগিতায় মরনব্যাধী করোনাভাইরাস প্রতিরোধে সচেতনতার লক্ষে মাস্ক ও সচেতনতা মূলক লিফলেট করেছেন জগন্নাথপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ মাহফুজুল আলম মাসুম, জগন্নাথপুর পৌর সভার ভারপ্রাপ্ত মেয়র মোঃ শফিকুল ইসলাম শফিক, এম এ কয়েস এম এ আজিজ, এম এ হান্নান, আবদুল ওয়াহাব, জাকারিয়া, এমরাজ, সাদিক মেম্বার ও আল-আমীন প্রমুখ।

এসময় উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মাহফুজুল আলম মাসুম সহ অন্যান্যরা জনসাধারণ এর উদ্দেশ্যে বলেন, করোনার ভয়াবহতা থেকে নিজের এবং পরিবারের সুরক্ষার লক্ষ্যে সামাজিক দুরত্ব বজায় রেখে চলাচল করার পাশাপাশি স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলতে হবে। যে কোন ধরনের স্বাস্থ্যগত সমস্যা সমাধানের জন্য বিশেষজ্ঞ ডাক্তারদের পরামর্শ নিতে আহবান জানান।

এদিকে আজ মঙ্গলবার (১৬ ই জুন) ভোর থেকে রেড জোন চিহ্নিত এলাকা জগন্নাথপুর পৌর এলাকা ও সৈয়দপুর -শাহারপাড়া ইউনিয়ন পুর্ব ঘোষিত লকডাউন চলছে। লকডাউন কার্যকর করতে জগন্নাথপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মাহফুজুল আলম মাসুম সহ জগন্নাথপুর প্রশাসনের লোকজন সার্বক্ষণিক মাঠে কাজ করছেন। জগন্নাথপুর হতে দূরপাল্লার কোন গণপরিবহন চলাচল না করলেও ছোট ছোট যানবাহন পৌর শহরে চলাচল করতে দেখা গেছে।

এ ব্যাপারে জগন্নাথপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ মাহফুজুল আলম মাসুম বলেন, লকডাউন কার্যকর করতে মাঠে আছি। সামাজিক দুরত্ব বজায় রেখে চলাচল করার জন্য জনগনকে আহবান করছি। এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, অধিকতর প্রচারণার পরও যদি জনগণ সচেতনতা অবলম্বন না করেন তাহলে আইনানুগ ভাবে পরবর্তী ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ