সর্বশেষ

পাথর কোয়ারি চালু না হলে পরিবহন ধর্মঘট 

খেটে খাওয়া মানুষদের আন্দোলন

গোয়াইনঘাট উপজেলার জাফলং পাথর কোয়ারি সচলের দাবিতে বিশাল সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়েছে।

বুধবার দুপুরে স্থানীয় মামার বাজার পয়েন্টে এ প্রতিবাদ সমাবেশের আয়োজন করেন শ্রেমিকরা। তাঁদের এই আয়োজনে যোগ দেন উপজেলা, ইউনিয়ন চেয়ারম্যান-সদস্যবৃন্দ। এছাড়াও স্থানীয় সর্বস্তরের সাধারণ জনগণ একাত্মতা প্রকাশ করেন।

কাজ চাই ভাত চাই, পাথরকোয়ারি সচল চাই। সকলের দাবি একটাই-অচল পাথর কোয়ারি সচল চাই। শ্রমিক বাঁচলে বাঁচবে দেশ-শেখ হাসিনার বাংলাদেশ। লাখো মানুষের প্রাণের দাবি পাথরকোয়ারি খুলে দাও, দিতে এমন  স্লোগানে মুখর জাফলংয়ের মামার বাজার এলাকা।

প্রতিবাদ সমাবেশে অংশ নিতে বেলা ১২টার মধ্যে মামার বাজার এলাকায় জড়ো হয় বিভিন্ন শ্রেণী পেশার কয়েক হাজার মানুষ। লোকে লোকারণ্য হয়ে উঠার কারণে সকাল থেকেই জাফলং বাজার, মামার বাজার, মোহাম্মদপুর ও বল্লাঘাট এলাকায় সকল প্রকার যানবাহন চলাচল বন্ধ হয়ে যায়।

জাফলং ট্রাকচালক সমবায় সমিতি, জাফলং বল্লাঘাট পাথর উত্তোলন সরবরাহকারী শ্রমিক সমবায় সমিতি ও বৃহত্তর জৈন্তা পাথর শ্রমিক ট্রেড ইউনিয়ন এবং মোহাম্মদপুর মিতালী যুব সংঘের যৌথ আয়োজনে অনুষ্ঠিত প্রতিবাদ সমাবেশে সভাপত্বি করেন জাফলং বল্লাঘাট পাথর উত্তোলন ও সরবরাহকারী শ্রমিক বহুমুখি সমবায় সমিতির সভাপতি আব্দুস শহিদ। যুবলীগ নেতা নাজমুল হোসাইন নাজিমের পরিচালনায় অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন, সিলেট জেলা ট্রাক-পিকআপ, কাভার্ডভ্যান মালিক সমিতির সভাপতি সৈয়দ মুকসেদ আহমদ।

প্রধান বক্তা হিসেবে বক্তব্য রাখেন সিলেট জেলা ট্রাক-পিকআপ, কাভার্ডভ্যান শ্রমিক ইউনিয়নের সভাপতি আবু সরকার।

এ সময় বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন গোয়াইনঘাট উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ফারুক আহমদ, পূর্ব জাফলং ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান লুৎফুর রহমান লেবু, উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সম্পাদক সামসুল আলম, পূর্ব জাফলং ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের আহ্বায়ক মিনহাজুর রহমান প্রমুখ।

এসময় অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন ও বক্তব্য রাখেন সিলেট জেলা ট্রাক-পিকআপ, কাভার্ডভ্যান মালিক সমিতির সহ-সভাপতি মুজিবুর রহমান, সহ-সম্পাদক শাহিন আহমদ, সাংগঠনিক সম্পাদক শাহজাহান, জাফলং স্টোন ক্রাশার মিল মালিক সমিতির সভাপতি বাবলু বখত, তামাবিল কয়লা আমদানীকারক গ্রæপের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ইলিয়াস উদ্দিন লিপু, সিলেট জেলা বঙ্গবন্ধু ফাউন্ডেশনের যুগ্ম সম্পাদক শামীম আল মামুন মনির, গোয়াইনঘাট উপজেলা শ্রমিক লীগের সভাপতি মাসুক আহমেদ, জাফলং ট্রাক চালক সংগঠনের সভাপতি ফয়জুল ইসলাম, সহ-সভাপতি শাহ আলম, সাধারণ সম্পাদক আব্দুর রহিম, ইউনিয়ন যুবলীগের যুগ্ম আহবায়ক কামাল হোসাইন, জাফলং ট্রাক মালিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক আব্দুল আলিম, কৃষকলীগ জৈন্তাপুর উপজেলা শাখার সভাপতি আব্দুল মান্নান, জাফলং বল্লাঘাট পাথর উত্তোলন ও সরবরাহকারী শ্রমিক বহুমুখি সমবায় সমিতির সহ-সভাপতি আব্দুল মতিন, সাধারণ সম্পাদক আব্দুস সালাম, যুগ্ম সম্পাদক ফুল মিয়া, বৃহত্তর জৈন্তা বেলচা শ্রমিক ট্রেড ইউনিয়নের সাংগঠনিক সম্পাদক লিয়াকত আলী, ইউনিয়ন স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি বিল্লাল হোসেন, মোখতলা বালু ব্যবসায়ী সংগঠনের সভাপতি আব্দুর রউফ, সাধারণ সম্পাদক জিয়াউর রহমান, মোহাম্মদপুর মিতালী সবুজ সংঘের সভাপতি রুবেল আহমদ, বন্ধন সমাজ কল্যাণ যুব সংঘের সভাপতি জুবের আহমদ, মামার বাজার সমাজ কল্যাণ যুব সংঘের সভাপতি ফারুক আহমদ, প্রসসেসের সভাপতি জুনেদ আহমদ, জাফলং পর্যটন কেন্দ্র ব্যবসায়ী সমিতির সভাপতি হোসেন মিয়া, সাধারণ সম্পাদক আলমগীর হোসেন, ছৈলাখেল সমাজ কল্যাণ যুব সংঘের সাধারণ সম্পাদক হালিম আল মামুন, যুবলীগ নেতা শেরগুল গোসাই, আব্দুল করিম, কামাল হোসেন, মনসুর আহমদ, ছাত্রলীগ নেতা সোহেল আহমদ, মেহেদি হাসান, ইউসুফ আহমদ, সাব্বির রহমান সাজন, শ্রমিক নেতা আবুল কালাম প্রমুখ।

সমাবেশে বক্তারা বলেন, জাফলংয়ের প্রতিবেশ সংকটাপন্ন এলাকা (ইসিএ) ব্যাতীত পিয়াইন নদী এলাকায় আরও প্রায় ৩শ ১১হেক্টর জায়গা পাথর কোয়ারির নামে গেজেটভুক্ত রয়েছে। কাজেই শুধুমাত্র ইকোলজিক্যাল ক্রিটিক্যাল এরিয়ার (ইসিএ) অজুহাত দিয়ে গোটা পাথরকোয়ারি এলাকা বন্ধ করে লাখো মানুষের আয় রোজগারের পথ বন্ধ করে দেয়া হয়েছে। যেখানে শ্রমিক ব্যবসায়ী মিলিয়ে প্রায় লক্ষাধিক মানুষের কর্মসংস্থানের সুযোগ রয়েছে, সেই পাথর কোয়ারি বন্ধ না করে সচল করে দেয়ার জন্য মাননীয় প্রধানমন্ত্রী বঙ্গবন্ধুকন্যা শেখ হাসিনার প্রতি আকুল আবেদন জানিয়েছেন তারা। পাশাপাশি প্রধানমন্ত্রী বরাবর স্মারকলিপিদে ওয়ার ৭২ ঘন্টা পূর্ণ হবে আগামীকাল।আগামী কালকের মধ্যে পাথর কোয়ারী সচল করা না হলে শনিবার সকাল থেকে অনির্দিষ্টকালের পরিবহন ধর্মঘট ঘোষণা করেন নেতৃবৃন্দ।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ