সর্বশেষ

কমলগঞ্জে ১ ঘন্টার জন্য ‘মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসারের দায়িত্বে’ দশম শ্রেনীর ছাত্রী

 

মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জে মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসারের দায়িত্বে এক ঘন্টার জন্য ১০ম শ্রেণির ছাত্রী মনি রানী কর।
বিশ্ব শিশু দিবস ও শিশু অধিকার সপ্তাহ উপলক্ষে রবিবার সকাল ১১টায় উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসারের কার্যালয়ে এক অনুষ্ঠানে এ দায়িত্ব পালন করে ঐ ছাত্রী।

শিক্ষা অফিস সূত্রে জানা যায়, উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার সামছুন নাহার পারভীন এক ঘন্টার জন্য ন্যাশনাল চিলড্রেন’স টাস্ক ফোর্স এর সাধারণ সদস্য স্কুলছাত্রী মনি রাণী কর’কে মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার তাকে ফুলেল শুভেচ্ছা জানিয়ে প্রতিকী দায়িত্ব হস্তান্তর করেন।
প্রতিবছর এ কার্যক্রমটি সারা বিশ্বে “গার্লস টেকওভার” নামে পরিচিত। এতে প্রাধন পৃষ্ঠপোষকতার দায়িত্বে রয়েছে ‘প্ল্যান ইন্টারনাশনাল’।

এছাড়াও স্থানীয় পর্যায়ে বাস্তবায়ন করেছে রিলায়েন্ট উইমেন ডেভেলপমেন্ট অর্গানাইজেশন-আরডব্লিউডিও। এই কর্মসুচির প্রধান উদ্দেশ্য মেয়েদের সমাজের উচ্চপদস্থ বিভিন্ন পদের দায়িত্ব প্রদানের মাধ্যমে তাদের অবস্থান নেতৃত্ব, সিদ্ধান্ত ও সাফল্য তুলে ধরতে পারে, সেই আত্মবিশ্বাস তৈরীর সুযোগ করে দেয়া।

এন. সি. টি. এফ এর পক্ষ থেকে তাকে ফুল দিয়ে শুভেচ্ছা জানান, এন. সি. টি. এফ এর সভাপতি ‘ সুবর্ণা রানী কর ও তার দল। পরের ধাপে মনি রাণী করকে কিভাবে উক্ত পদের বিভিন্ন দায়িত্ব পালন করতে হয় সেই বিষয়ে পরামর্শ দেন উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন- এন.সি.টি.এফ কমিটির সভাপতি সুবর্ণা রাণী কর, সহ সভাপতি প্রাণেশ কর, সাধারণ সম্পাদক প্রমি রাণী কর, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক সৃজন কর, চাইল্ড পার্লামেন্ট মেম্বার (মেয়ে) সুমি রানী কর, শিশু সাংবাদিক (ছেলে) বিপুল কর, উপজেলা সেচ্ছাসেবক জয়ন্ত কর। সার্বিক সহযোগিতায় ছিলেন ওয়াই মুভস প্রকল্প এর প্রকল্প কর্মকর্তা বাবুল কুমার সিংহ।

মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার সামছুন নাহার পারভীন বলেন, একসময় এই শিশুরাই বিশ্বকে নেতৃত্ব দেবে। এই ধরনের কর্মসুচীর মাধ্যমে মেয়েরা আত্মবিশ্বাসী এবং উৎসাহিত হবে।

মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসারের প্রতিকী দায়িত্ব পালনকারী স্কুলছাত্রী মনি রাণী কর বলেন, উক্ত কর্মসুচির মাধ্যমে আমি নিজেকে অনেক আত্মবিশ্বাসী মনে করছি। বাংলাদেশ এর যেকোনো উপজেলা এরকম একটা পদের দায়িত্বে আসলে আমি সার্বক্ষনিক শিশুদের পর্যবেক্ষন করব এবং একটা শিশু তার যে প্রতিভায় দক্ষ তাকে সেটায় মনোযোগ দিতে বলব।

50% LikesVS
50% Dislikes
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ