সর্বশেষ

পাঠানটুলা-এয়ারপোর্ট বাইপাস রোডের নির্মান কাজে অনিয়মের অভিযোগ

সিলেট পাঠানটুলা- এয়ারপোর্ট ভাইপাস সড়কে রাস্তার কাজে অনিয়মের অভিযোগ চিফ পাথরের বদলে মাটি

ফারুক আহমদ চৌধুরীঃ সিলেটে শহরতলীতে সড়ক ও জনপথ বিভাগের রাস্তার কাজে অনিয়মের অভিযোগ। সিলেটের পাঠাটুলা-এয়ারপোর্ট বাইপাস সড়কে নির্মাণের কাজে ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে অনিয়ম এর অভিযোগ উঠেছে। স্থানীয়রা অভিযোগ করে বলেন নিম্ম মানের উপকরণ দিয়ে রাস্তা কাজ করছেন সওজের লোকজন।

আজ ২৭শে এপ্রিল রোজ মঙ্গল বেলা ২টা সময় নগরীর নালিয়া এলাকায় রাস্তার কাজে অনিয়মের অভিযোগ তুলে ও নিয়ম অনুযায়ী কাজ সম্পন্ন করার দাবিতে সম্প্রতি মানববন্ধন ও বিক্ষোভ মিছিল করেছে এলাকাবাসী। আরো বলেন,অনিয়ম দুর্নীতির বিষয়টি ধামাচাপা দিতে স্থানীয় একটি মধ্যস্বত্বভোগী প্রভাবশালী মহল উঠে পড়ে লেগেছে। তারা তাদের নিজ স্বার্থ সিদ্ধ করার জন্য এরকম করছেন।

এসময় উপস্থিত ছিলেন বিসিষ্ট সমাজ সেবক সিরাজ মিয়া, সেলিম আহমদ, সম্ভাব্য মেম্বার পদপ্রাথী, সিরাজ মিয়া, মাছুম আহমদ , জিলা মিয়া, সদর উপজেলা আওয়ামী” স্বেচ্ছাসেবলীগ আহবায়ক কমিটি সদস্য ও খাদিমনগর ইউনিয়নের ২নং ওয়ার্ডের সম্ভাব্য মেম্বার পদপ্রাথী মো: ছোয়াব আলী, সদর উপজেলা যুবলীগ নেতা ইমরান আহমদ, নজরুল ইসলাম, সাদ উল্লাহ মিয়া, বিলাল মিয়াসহ আরোও অনেকই।

এলাকাবাসীর অভিযোগ উল্লেখ্য করেন বলেন ৩নং খাদিমনগর ইউনিয়নের ২নং ওয়ার্ডের খাগড়ীয়া লাখাউরা পাটানটুলা-এয়ারপোর্ট পর্যন্ত রাস্তার কাজের ভালো পাথর দ্বারা রাস্তার কাজ করার জন্য ওয়ার্ড বাসীর সর্বস্থরের মানুষের দাবী। অনিয়ম-দুর্নীতির বিষয়টি ধামাচাপা দিতে স্থানীয় একটি মধ্যস্বত্বভোগী প্রভাবশালী মহল উঠেপড়ে লেগেছে। সড়ক বিভাগের তথ্য মতে, পাঠানটুলা-এয়ারপোর্ট বাইপাস সড়কের প্রশস্তকরণ এবং কার্পেটিংয়ের জন্য চারটি প্যাকেজে দরপত্র আহ্বান করে সড়ক বিভাগ। সড়ক প্রশস্তকরণ ও নির্মাণে অনিয়মের অভিযোগ তোলে চরমুচারিয়া এলাকাবাসী। স্থানীয়দের অভিযোগ, সড়কের দুপাশের বর্ধিত অংশে নিম্নমানের বালুর সঙ্গে মাটির ব্যবহার, রাস্তায় ব্যবহার করা হয়েছে নিম্নমানের ইট, বালু ও ডাসনামক পাথর ।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, পাঠানটুলা-এয়ারপোর্ট বাইপাস সড়কের নালিয়াস্থ খাগড়িয়া নামক স্থানে গিয়ে দেখা যায় রাস্তার সাববেসে তিনস্তরে পানি দিয়ে কমপ্যাক্ট না করায় যে কাজ হয়েছে, বর্ষায় এই রাস্তা টিকবে না। তারা জানান,আমরা গ্রামবাসী ঠিকাদারের লোকজনকে নিয়ম মেনে কাজ করার অনুরোধ করি তারা তা আমলে নেন নি। বরং প্রতিবাদ করায় তারা আমাদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়ার হুমকি দেন। আমাদেরকে তোয়াক্কা করেনি।

এদিকে স্থানীয় কয়েকজন সাংবাদিক সরেজমিনে পরিদর্শনকালে সড়কটির বেশ কয়েকটি গুরুত্বপূর্ণ অংশে সড়ক ও জনপথ বিভাগের (সওজ) দায়িত্বরত কার্যসহকারীর সামনে অনিয়মের চিত্র দেখান এলাকাবাসী। এতে দেখা যায়, চিপ পাথরের বদলে কাদা জাতীয় মাটির পরিমান বেশী। ঠিকাদারের লোকজন ম্যানেজার জানান ও এলাকাবাসীর মধ্যে হাতাহাতি হয়েছিল।

পরিদর্শনকালে ঠিকাদারের লোকজন বলেছেন আমরা ভালোভাবে কাজ করছি। তারপরও এলাকাবাসী কাজে বাধা দেয়। নিয়ম মেনেই বৃহৎ প্রকল্পের কাজটি করা হচ্ছে। অনিয়ম বা নিম্ন মানের কাজের অভিযোগের বিষয়টি ভিত্তিহীন। তবে রাস্তার কাজ মানসম্মতভাবে সম্পন্ন করার জন্য প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়ার আশ্বাস দেন তিনি। তারা সওজের কার্যসহকারী তিনি ঊর্ধ্বতন র্কর্তৃপক্ষের সঙ্গে যোগাযোগ করতে বলেন।

এরপর সাংবাদিকরা সওজের সাইড ইন্জিনিয়ার পলাশের ফোনে উক্ত অভিযোগের কথা জানতে চাইলে তিনি এড়িয়ে যান। আরো বলেন আমাকে না বলে আপনারা উর্ধ্বতন কতৃপক্ষের সাথে যোগাযোগ করেন।

এ বিষয়ে স্থানীয় ইউপি সদস্য মোহাম্মদ সিরাজ মিয়ার সাথে মুঠোফোন কয়েকবার যোগযোগ করা হলে তিনি ফোনটি রিসিভ করেন নি।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ