সর্বশেষ

হেলিপোর্ট তৈরির কাজ চলছে….

হেলিকপ্টার অবতরণ ও আনুষঙ্গিক সুবিধা বৃদ্ধির জন্য দেশের প্রথম হেলিপোর্ট তৈরির কাজ চলছে। তবে এ বিষয়ে বিস্তারিত জানিয়ে এখনো আনুষ্ঠানিক ঘোষণা দেওয়া হয়নি।

বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব মো. মহিবুল হক বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেছেন, হেলিপোর্টের জন্য উপযুক্ত স্থান নির্ধারণও করা হয়েছে। আনুষঙ্গিক কাজ করার লক্ষ্যে বাংলাদেশ বেসামরিক বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষ থেকে একটি কমিটি গঠন করে দেওয়া হয়েছে। তারা দ্রুত একটি প্রতিবেদন পেশ করবে। গঠিত কমিটির প্রতিবেদন পেশ করার পর হেলিপোর্ট তৈরির বিষয়ে আনুষ্ঠানিক ঘোষণা দেওয়া হবে।

গতকাল বুধবার বাংলাদেশ পর্যটন করপোরেশন, বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন মন্ত্রণালয় এবং ভ্রমণ ম্যাগাজিনের যৌথ উদ্যোগে আয়োজিত ‘ট্যুরিজম: এ প্যানাল্টি শুট ফর দ্য ইকোনমি অব বাংলাদেশ’ শীর্ষক জুম কনফারেন্সে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এ কথা বলেন তিনি।

সিনিয়র সচিব বলেন, বাংলাদেশের পর্যটনের উন্নয়নের জন্য একটি নীতিমালা তৈরির কাজ চলছে। এই নীতিমালায় পর্যটনের সঙ্গে জড়িত প্রত্যেক মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব সুনির্দিষ্ট করা হবে। পর্যটন উন্নয়নের জন্য দরকার সরকারি-বেসরকারি সব প্রতিষ্ঠানের সমন্বিত উদ্যোগ।

বাংলাদেশের পর্যটন গন্তব্যের নিরাপত্তা নিশ্চিতে দক্ষতার সঙ্গে কাজ করায় ট্যুরিস্ট পুলিশ ও স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়কে ধন্যবাদ জানিয়ে তিনি বলেন, ট্যুরিস্ট পুলিশ ইউনিট গঠন করা বাংলাদেশের পর্যটনের উন্নয়নে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বহুমাত্রিক নেতৃত্ব ও দূরদৃষ্টির ফসল।

মহিবুল হক বলেন, পর্যটনের উন্নয়ন ও পর্যটকদের সুবিধা নিশ্চিত করার জন্য জেলা প্রশাসকদের দৈনন্দিন কাজে পর্যটকদের সহায়তা করার বিষয়টি অন্তর্ভুক্ত করার কাজ চলছে। জেলা প্রশাসন যাতে পর্যটক সংগঠক হিসেবে কাজ করতে পারে এ লক্ষ্যেই এই প্রস্তাব মন্ত্রিপরিষদ বিভাগে এরই মধ্যে প্রেরণ করা হয়েছে। আমাদের লক্ষ্য উপজেলা পর্যন্ত এই কার্যক্রমকে অন্তর্ভুক্ত করা।

পর্যটনের উন্নয়নে কাজ করার আহ্বান জানিয়ে সিনিয়র সচিব বলেন, ‘আমাদের দেশের ও পর্যটন গন্তব্যগুলোর ইতিবাচক প্রচারণা সহায়তার জন্য গণমাধ্যমকে অনুরোধ করছি।’

ভ্রমণ ম্যাগাজিনের সম্পাদক আবু সুফিয়ানের সঞ্চালনায় ও বাংলাদেশ পর্যটন করপোরেশনের চেয়ারম্যান রাম চন্দ্র দাসের সভাপতিত্বে জুম কনফারেন্সে আরো অনেকে উপস্থিত ছিলেন।

50% LikesVS
50% Dislikes
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ