সর্বশেষ

২০ বছরে ৭’শ লঞ্চডুবি, ২০ হাজার মানুষের মৃত্যু

একের পর এক ঘটেই চলেছে লঞ্চডুবির ঘটনা। এসব দুর্ঘটনায় শত শত প্রাণহানী হলেও লঞ্চডুবি রোধে নেয়া হয়না কার্যকর কোনো ব্যবস্থা। ফিটনেস না থাকা, ধারণক্ষমতার অতিরিক্ত যাত্রী বোঝাই, ট্রাফিক সিগন্যাল অমান্য করাসহ কোনো ঘটনাতেই বিচার না হওয়ায় একই ঘটনার পুনরাবৃত্তি ঘটতেই থাকে।
২০১৪ সালে ৪ আগষ্ট। স্মরণকালের ভয়াবহ লঞ্চডুবি ঘটে পদ্মার বুকে। ঈদের পর হওয়ায় লঞ্চে ছিলো ধারণ ক্ষমতার অতিরিক্ত যাত্রী। ভরাবর্ষার উত্তাল পদ্মায় শতাধিক যাত্রী নিয়ে ডুবে যায় পিনাক ৬। ঘটনার পর পেরিয়েছে ৬ বছর। কিন্তু বিচার কাজ এখনও চলছে। পিনাক ডুবির মাত্র তিন মাস আগেই মেঘনাতেও লঞ্চ ডুবে মারা যান শতাধিক মানুষ। একইরকম ঘটনা আরো আছে।
সবগুলো ঘটনাতেই গঠিত হয়েছে তদন্ত কমিটি। কিন্তু ফলাফল শূন্য। বেশ কিছুদিন বিরতি দিয়ে আবারও ঘটলো লঞ্চডুবি। সোমবার (২৯ জুন) সকালে দুটি লঞ্চের সংঘর্ষে বুড়িগঙ্গায় যাত্রীসহ ডুবে যায় মর্নিং বার্ড নামের একটি লঞ্চ।
বিশেষজ্ঞরা বলছেন নকশায় ত্রুটি, অদক্ষ ইঞ্জিন অপারেটর, অতিরিক্ত যাত্রী ও মালামাল বহন ছাড়াও বিচারহীনতার কারণে বন্ধ হয় না লঞ্চ দুর্ঘটনা। ফায়ার সার্ভিস সাবেক মহাপরিচালক বি. জে. আলী আহমেদ খান বলেন, বাংলাদেশে নৌ দুর্ঘটনা অহরহ ঘটছেই। অপরাধ কে করছে আর অপরাধীদের যদি শাস্তি না হয় যার জন্য অনেকেই অনৈতিক কাজ করেই যায়। শুধু তাই নয় এক্ষেত্র কর্তৃপক্ষগুলোও থাকেন উদাসীন। বি. জে. আলী আহমেদ খান আরো বলেন, দুর্নীতি সব জায়গাতেই আছে। সব কিছু মিলিয়ে আমাদেরও তদারকির গাফিলতি রয়েছে। যে কারণে পরিসংখ্যান বলছে, গত ২০ বছরে প্রায় ৭শ লঞ্চ ডুবিতে মারা গেছেন ২০ হাজার মানুষ।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ