সর্বশেষ

মৃত্যু যখন অবধারিত, ভয় পাওয়ার কিছু নেই : প্রধানমন্ত্রী

সংসদ নেতা ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, মানুষ মরণশীল। মারা যাওয়াটাই বাস্তব। করোনা পরিস্থিতিতে এমন একটা সময় বিশ্ব পার করছে যে, এখানে কোনো শক্তি কাজে লাগছে না। যে যতই শক্তিশালী হোক। যতই অর্থশালী, অস্ত্রশালী হোক, কোনো শক্তিই কাজে আসছে না। করোনাভাইরাসই যেন সবচেয়ে শক্তিশালী। মনে হয় যেন প্রকৃতি প্রতিশোধ নিচ্ছে।
বুধবার জাতীয় সংসদে আনা শোকপ্রস্তাবের ওপর আলোচনা কালে এসব কথা বলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। করোনা পরিস্থিতিতে কাল থেকে সংসদের বাজেট অধিবেশন শুরু হয়েছে। কাল ২০২০-২১ অর্থ বছরের প্রস্তাবিত বাজেট পেস করবেন অর্থমন্ত্রী।
করোনা ভাইরাস পরিস্থিতিতে মানুষের স্বাভাবিক জীবন যাপনের জন্য সবকিছু করা হবে বলে জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তিনি বলেছেন, ’আমরা একদিকে যেমন করোনা মোকাবিলা করব। পাশাপাশি মানুষের স্বাভাবিক জীবনযাপন যাতে চলতে পারে, মানুষের যাতে কষ্ট না হয়, সে জন্য করণীয় সব করব।’
প্রথম দিন সাংসদ ও বিশিষ্ট ব্যক্তিদের মৃত্যুতে শোকপ্রস্তাব আনা হয় এবং এর ওপর আলোচনা হয়। পরে সর্ব সম্মতিক্রমে শোকপ্রস্তাব গৃহীত হয় এবং মৃতদের আত্মার মাগফিরাত কামনা করে মোনাজাত করা হয়। আজ বৃহস্পতিবার বিকেল তিনটা পর্যন্ত অধিবেশন মুলতবি ঘোষণা করেন স্পিকার শিরীন শারমীন চৌধুরী।
করোনা পরিস্থিতিতে প্রধানমন্ত্রীকে সংসদে না এসে বাসা থেকে ভার্চ্যুয়ালি যুক্ত হতে পারেন কি না, সেই প্রস্তাব দেন সংসদের বিরোধী দলীয় চিফ হুইপ মশিউর রহমান। তিনি হাতে গ্লাভস, মুখে মাস্ক এবং মাথাও ঢেকে সংসদে আসেন। প্রথমে নিজে মাস্ক খুলে কথা বলতে চাইলে স্পিকার অনুমতি দেননি। এরপর মাস্ক পরেই বক্তব্য শুরু করেন। তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রী না থাকলে কে চালাবে দেশটা? তাই প্রধানমন্ত্রীর নিরাপত্তার কথা ভেবে বাসায় থেকে যুক্ত হলে ভালো হয়।
প্রধানমন্ত্রী তাঁর ভাষণের সময় এর জবাব দিতে গিয়ে বলেন, তিনি নিজের জীবন নিয়ে চিন্তা করেন না। তিনি বলেন, জন্ম যখন হয়েছে। মৃত্যু হবেই। গুলি খেয়ে মরি, বোমা খেয়ে মরি কিংবা করোনাভাইরাসে অসুস্থ হয়ে মরি অথবা এখন কথা বলতে বলতে অসুস্থ হয়ে মরে যেত পারি। মৃত্যু যখন অবধারিত, তখন মৃত্যুকে ভয় পাওয়ার কিছু নেই।
প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমি মৃত্যুকে কখনো ভয় পাইনি, পাবও না। আল্লাহ জীবন দিয়েছেন। একদিন সেই জীবন নিয়েও যাবেন। মানুষকে কিছু দায়িত্ব, কিছু কাজ দিয়ে পাঠিয়েছে আল্লাহ। সেই কাজটুকু করতে হব। আল্লাহর লিখিত যে দায়িত্ব আমার ওপর অর্পিত হয়েছে, যতক্ষণ এই কাজটুকু শেষ না হবে ততক্ষণ কাজ করে যাব। কাজ শেষে আমিও চলে যাব। এ নিয়ে চিন্তার কিছু নেই। আমি এখানে বেঁচে থাকার জন্য আসিনি। জীবনটা বাংলার মানুষরে জন্য বলিয়ে দিত এসেছি। সুতরাং, ভয় পাওয়ার কিছু নেই।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ