সর্বশেষ

সুনামগঞ্জে পানিতে তলিয়ে যাচ্ছে ধান

অতি বৃষ্টি ও উজান থেকে নেমে আসা পাহাড়ি ঢলে সুনামগঞ্জের বিশ্বম্ভরপুরের খরচার হাওরে জলাবদ্ধতা দেখা দিয়েছে। এতে হাওরের নিচু এলাকার জমির ধান হুমকিতে পড়েছে।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা গেছে, বিশ্বম্ভরপুর বাজারের দক্ষিণ দিকে ফসল রক্ষা বাঁধের পাশে কৃষক কোমর পানিতে নেমে জমির আধাপাকা ধান কাটছেন। কৃষকরা জানান, হাওরের উঁচু এলাকা থেকে নিচের দিকে পানি প্রবাহিত হওয়ায় এবং কয়েক দিনের বৃষ্টিতে তাদের জমির আধাপাকা ধান পানিতে ডুবে গেছে। এজন্য তারা ধান কেটে নিচ্ছেন।

কৃষ্ণনগর গ্রামের এক কৃষক বলেন, প্রতিবছর হাওরের জমিতে জলাবদ্ধতার কারণে ক্ষতিগ্রস্ত হয়। এবারও ব্যতিক্রম হয়নি। তার জমির ধান অর্ধেক পেকেছে ডুবে যাওয়া আশঙ্কায় তিনি জমির ধান কাটছেন। হাওরের পানি কম। তবে নদীর পানি বেশি হওয়ায় পানি নিষ্কাশন না হওয়ায় জমিতে জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হয়েছে।

আসকর আলী নামে আরেকজন জানান, তিনি জমিতে ২৯ জাতের ধান লাগিয়েছেন। ধান পুরোপুরি পাকতে সময় লেগেছে। ধান পাকার আগেই উঁচু এলাকার পানি নেমে আসার কারণে তার জমি তলিয়ে যাওয়ার আগেই তিনি ধান কাটাচ্ছেন।

বিশ্বম্ভরপুর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান সফর উদ্দিন বলেন, ‘অতি বৃষ্টি ও উজান থেকে নেমে আসা পানির জন্য এ সমস্যা হয়েছে। এটি প্রতিবছর হয়। তবে জলাবদ্ধতার কারণে কোনও কৃষক ক্ষতিগ্রস্ত হলে উপজেলা পরিষদের পক্ষ থেকে তাদেরকে সহযোগিতা করা হবে।’

বিশ্বম্ভরপুর উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা দীপক কুমার দাস বলেন, আগাম বন্যার আশঙ্কায় কৃষক জমি থেকে আধাপাকা ধান কাটছেন। এজন্য তেমন কোনও ক্ষতি হবে না। উপজেলার ১৮২০ হেক্টর জমির মধ্যে ১৬২০ হেক্টর জমির ধান কাটা হয়ে গেছে। এরকম জলাবদ্ধতার স্বীকার হতে পারে ১০ বিঘা জমি। আবহাওয়া ভালো থাকলে সব কৃষক নিচু এলাকার ধান কাটতে পারবেন।

পানি উন্নয়ন বোর্ডের কার্যসহকারী আল আমিন বলেন, হাওর থেকে নদীতে বেশি পানি। তাই রাবার ড্যাম নিচু করে দিলে নদী থেকে হাওরে পানি ঢুকবে। এ কারণে হাওরের নিচু এলাকায় জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হয়েছে।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ