সর্বশেষ

নবীগঞ্জে নিত্যপণ্যের দাম বেড়েছে

হবিগঞ্জের নবীগঞ্জে করোনা ভাইরাসের প্রাদুর্ভাব বৃদ্ধি পাওয়ায় সকল ধরণের নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের দাম বাড়িয়েছেন অসাধু মুনাফা লোভী সিন্ডিকেট ব্যবসায়ীরা এতে করে চরম বেকায়দায় পড়েছেন নিম্ন আয়ের মানুষসহ মধ্যবিত্তরা।

নবীগঞ্জ উপজেলার বিভিন্ন হাট-বাজার ঘুরে জানা গেছে, গত এক সপ্তাহের ব্যবধানে মোটা চলের দাম বেড়েছে কেজিপ্রতি ১০ টাকা, আগে মোটা চালের বস্তার দাম ছিল ১৭৫০,১৮৫০ টাকা, তা এখন বেড়ে দাঁড়িয়েছে ২২০০,২৩০০ টাকা প্রতি বস্তা।

দাম বেড়েছে পেয়াজের পূর্বের মূল্য ছিল, ৪০ টাকা – বর্তমানে কেজি প্রতি ৬০/৬৫ /৭০ টাকা করে বিক্রি করা হচ্ছে। আলুর কেজিপ্রতি দাম ছিল ২০ টাকা বর্তমানে তা কেজিপ্রতি -৩০ দাম বেড়েছে -১০টাকা। মশুরি ডাল- পূর্বে ছিল- ৬০/৬৫ টাকা বর্তমানে কেজিপ্রতি ১০০/১১০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। সয়াবিন তৈল ৫ লিটার ফ্রেশ অথবা তীর, পূর্বের মূল্য ছিল- ৪৮০ টাকা বর্তমানে তা বেড়ে দাঁড়িয়েছে, ৫২০/৫৩০ টাকা।
লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে সিগারেটের দাম, বেনসন, গোল্ডলিফ, স্টার, প্যাকেট প্রতি দাম বেড়েছে ৬০/৮০ করে।
এছাড়া ছোলা, ভুট, চিনি, তেল ও গুড়া মসলাসহ নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যার দামও আকাশ ছোঁয়া হয়ে গেছে।
মুনাফালোভী ব্যবসায়ীরা সিন্ডিকেট গড়ে তোলে দফায় দফায় এসব পণ্যার দাম বাড়াচ্ছেন বলে অভিযোগ করেছেন ক্রেতারা।আজ বুধবার ২২ এপ্রিল নবীগঞ্জ পৌরশহরের স্থানীয় এক ব্যবসায়ী পাবেল আহমেদ ও ইনাতগঞ্জ বাজারের ব্যবসায়ী মুরাদ আহমদ, বলেন, আমরা নিত্য প্রয়োজনীয় পণ্যগুলো পাইকারি কিনে আনতে গেলে ডিলাররা চওড়া মূল্য ধরছেন নিরুপায় হয়ে কিনতে হচ্ছে। আমরা খুচরা বিক্রি করতে খুব বেগ পেতে হচ্ছে, এমনকি ডিলাররা আমাদের কে হুমকি দিয়ে বলেন – মাল নিলে নেন না নিলে মাল রেখে চলে যান?
অধিক লাভের আশায় বড় বড় ডিলার ও ডিষ্টিবিউটররা গুদামে চাল, ডাল, তেল, চিনি মজুদ রেখেছেন সামনে রমজান মাসে অধিক মুনাফার আশায়।
এমতাবস্থায় সবচেয়ে বিপাকে পড়েছেন মধ্যবিত্ত ও নিম্নমধ্যবিত্ত শ্রেণীর মানুষেরা৷
বাজারকে স্থিতিশীল ও স্বাভাবিক অবস্থায় নিয়ে আসতে হলে প্রশাসনকে নিয়মিত বাজার মনিটরিং করতে হবে এবং অসাধু ব্যবসায়ীদের বিরুদ্ধে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির ব্যবস্থা করতে হবে।
এব্যপারে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বিশ্বজিৎ কুমার পাল বলেন, আমি বিষয়টি ইতিমধ্যে জেনেছি আমাদের বিশেষ টিম মাঠে কাজ করছে। অসাধু মুনাফা লোভী ডিলার ও ডিষ্টিবিউটরদের বিরুদ্ধে অভিযান পরিচালনা করা হবে। কোন অনিয়ম পাওয়া গেলেই সাথে সাথে আইনি শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেওয়া হবে এতে কাউকে ছাড় দেয়া হবেনা।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ