সর্বশেষ

হাজার কোটি টাকা প্রনোদনা চায় সিলেট চেম্বার

করোনা সংকট কাটাতে এক হাজার কোটি টাকা প্রনোদনা চায় সিলেট চেম্বার। সিলেট চেম্বারের পক্ষ থেকে সংক্রান্ত একটি প্রস্তাবনা পাঠানো হয়েছে প্রধানমন্ত্রী, অর্থমন্ত্রী, পরিকল্পনামন্ত্রী ও পররাষ্ট্রমন্ত্রীর কাছে।

মঙ্গলবার গণমাধ্যমের কাছে সিলেট চেম্বার সভাপতি আবু তাহের মো. শোয়েব প্রেস বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে এ তথ্য নিশ্চিত করেন।

প্রেরিত পত্রে চেম্বার সভাপতি জানান- সিলেটে কোন ভারি শিল্প প্রতিষ্ঠান নেই। সবাই ট্রেডিং ব্যবসা, আমদানি ও রপ্তানির সঙ্গে জড়িত। বর্তমান করোনা পরিস্থিতিতে সরকারের নির্দেশনা মোতাবেক ২৬ মার্চ থেকে শুধুমাত্র নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্য ও ঔষধের দোকান ব্যতিত সকল ব্যবসা-প্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকায় সিলেটের ব্যবসায়ীরা ও নজিরবিহীন আর্থিক ও ব্যবসায়ীক সঙ্কটের মুখোমুখি হয়েছেন। সিলেটের ব্যবসায়ীদের এই ক্ষতি কিছুটা পুষিয়ে নিতে সিলেটের ব্যবসায়ীদের জন্য ১০০০ কোটি টাকার প্রণোদনা প্রয়োজন।

এ সময় তিনি সিলেটের ব্যবসায়ীদের বিভিন্ন দাবি-দাওয়া তুলে ধরেন। বলেন, সার্ভিস সেক্টরের সাথে যারা জড়িত যেমন- হোটেল-রেস্টুরেন্ট, গণপরিবহন ব্যবসাসহ প্রায় সব বন্ধ রয়েছে।
তাছাড়া ট্রেডিং ব্যবসার সাথে যারা জড়িত রয়েছেন তাদের ব্যবসা প্রতিষ্ঠান বন্ধ রয়েছে। তাই সিলেটের ব্যবসায়ীদের জন্য ১০০০ কোটি টাকা প্রণোদনা প্যাকেজ প্রদানের জন্য বিশেষ অনুরোধ জানাচ্ছি। বর্তমানে সিলেটের অনেক ব্যবসায়ীরা ঋণ গ্রহণপূর্বক ব্যবসা-বাণিজ্য চালিয়ে আসছিলেন। কিন্তু বর্তমান করোনা পরিস্থিতিতে সকল ব্যবসা প্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকায় ঋণের কিস্তি প্রদান করা সম্ভব হচ্ছে না। তাই চলমান পরিস্থিতি কাটিয়ে উঠে ব্যবসা-বাণিজ্য স্বাভাবিক হওয়া পর্যন্ত সকল ব্যাংক ঋণের কিস্তি স্থগিত রাখা এবং বন্ধকালীন সময়ে সুদ মওকুফ রাখার অনুরোধ জানাচ্ছি।

দাবির মধ্যে আরো রয়েছে- ‘বন্ধকালীন সময়ে বিদ্যুৎ বিল, গ্যাস বিল, পানির বিল, হোল্ডিং ট্যাক্স মওকুফের ব্যবস্থা করা। ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীদের এককালীন প্রণোদনা প্রদানের ব্যবস্থা গ্রহণ। করোনা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে না আসার পূর্ব পর্যন্ত ভ্যাট রির্টান দাখিল প্রক্রিয়ার সময়সীমা জরিমানা ব্যতিত বৃদ্ধি বা সাময়িক বন্ধ রাখা। দেশের পরিস্থিতি স্বাভাবিক না হওয়া পর্যন্ত আমদানীকৃত কয়লা ও পাথরের ব্যাংক ঋণ ও এলসিকৃত মার্জিনের উপর সুদ মওকুফ করার অনুরোধ জানাচ্ছি।’  এছাড়া বন্ধ থাকা প্রতিষ্ঠান সমূহের যেসব কর্মচারীরা সম্পূর্ণভাবে বেতনের উপর নির্ভরশীল তাদের বেতন প্রদানের ব্যবস্থা গ্রহণ।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ