সর্বশেষ

লকডাউন না মানায় গুলি করে হত্যা

সরকার ঘোষিত লকডাউন না মেনে গ্রামের কর্মকর্তা এবং পুলিশকে কাস্তে নিয়ে হামলার হুমকি দেয়ায় ফিলিপাইনে এক ব্যক্তিকে গুলি করে হত্যা করা হয়েছে।
দেশটির পুলিশ বরাতে রোববার এ তথ্য দিয়েছে আলজাজিরা। পুলিশ বলছে, করোনাভাইরাস তল্লাশি চৌকিতে এসে ৬৩ বছর বয়সী ওই ব্যক্তি হুমকি দিয়েছিলেন। করোনাবিধি না মানলে ফিলিপাইন প্রেসিডেন্ট রদ্রিগো দুতের্তে গুলি করার হুমকি দেয়ার তিন দিন পরই এ হত্যাকাণ্ড ঘটল।
এদিকে, লকডাউন অমান্যকারীদের নির্বোধ আখ্যা দিয়েছেন নিউজিল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রী জাসিন্দা আরডার্ন।
ফিলিপিন্স পুলিশ বলছে, ধারণা করা হচ্ছে ওই ব্যক্তি মদ্যপ অবস্থায় এসে দেশটির দক্ষিণাঞ্চলীয় আগুসান দেল নর্তে প্রদেশের নাসিপিত শহরের তল্লাশি চৌকিতে পুলিশ ও গ্রাম্য কর্মকর্তাদের হুমকি দিয়েছিলেন। মাস্ক না পরার কারণে গ্রামের এক স্বাস্থ্যকর্মী ওই ব্যক্তিকে সতর্ক করেছিলেন। এতে ওই ব্যক্তি রেগে যান এবং গালিগালাজ করতে থাকেন। এমনকি ওই কর্মকর্তার ওপর কাস্তে নিয়ে হামলা চালান।
ঘটনাস্থলে পুলিশের এক সদস্য তাকে শান্ত করার চেষ্টা করলেও পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে না আসায় ওই ব্যক্তিকে গুলি করে হত্যা করা হয়। করোনাভাইরাসের বিস্তার ঠেকাতে সরকার আরোপিত বিধি-নিষেধ না মানায় এটিই দেশটিতে প্রথম পুলিশি হত্যাকাণ্ড।
গত বুধবার দেশটির প্রেসিডেন্ট দুতের্তে লকডাউন মানতে যারা ঝামেলা করবেন, তাদেরকে গুলি করতে পুলিশ ও সামরিক বাহিনীকে নির্দেশ দেন। জাতির উদ্দেশে দেয়া ভাষণে তিনি বলেন, এটা খুবই সংকটপূর্ণ সময়। সরকারের নির্দেশনা মেনে চলুন। স্বাস্থ্যকর্মী এবং চিকিৎসকদের কোনো ধরনের ক্ষতি করবেন না, কারণ এটা গুরুতর অপরাধ। যদি কেউ ঝামেলা সৃষ্টি করেন এবং তাদের জীবনকে ঝুঁকিতে ফেলেন, তাহলে পুলিশ এবং সেনাবাহিনীর প্রতি আমার নির্দেশ, তাদের গুলি করে হত্যা করুন।
রোববার পর্যন্ত ফিলিপাইনে মোট আক্রান্তের সংখ্যা তিন হাজার ২৪৬ জন। মারা গেছেন অন্তত ১৫২ জন।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ