সর্বশেষ

ভয়াবহ ঝুঁকিতে ভারত

করোনাভাইরাসে ঝুঁকিতে রয়েছে ভারত।জুনের তৃতীয় সপ্তাহে করোনার আক্রান্তের সংখ্যা ভয়াবহ রূপ নিতে পারে। 

মার্কিন সংস্থা বোস্টন কনসাল্টিং গ্রুপ এ দাবি করেছে।

লকডাউনে চীনের পরিস্থিতি এবংভারতের স্বাস্থ্যের পরিকাঠামোর ওপর ভিত্তি করে প্রতিবেদনটিতে এসব কথা বলা হয়েছে। মার্কিন সমীক্ষা প্রতিবেদনে আরও বলা হয়, জুন-জুলাই পর্যন্ত কলম্বিয়া, পোল্যান্ড এবং ব্রিটেনেও লকডাউন চলতে পারে। তবে ভারতের স্বাভাবিক ছন্দে ফিরতে আরও সময় লাগবে। মুম্বাইয়ের ব্রিহানমুম্বাই পৌর কর্পোরেশনের (বিএমসি) এক কর্মকর্তা জানান, মৃত ব্যক্তির বিদেশ ভ্রমণের কোনো ইতিহাস ছিল না। স্থানীয় কিরণ দিগাভকর হাসপাতালেপাঠানো হয়েছিল তাকে। সেখানে করোনা পরীক্ষায় পজিটিভ ফল আসার কয়েক ঘণ্টার মধ্যে তিনি মারা যান। পরে ওই ব্যক্তির পরিবারের আরও কয়েকজন সদস্যেরকরোনা পরীক্ষা করা হয় এবং তাদের সবাইকে হোম কোয়ারেন্টিনে রাখা হয়েছে। এ ব্যক্তি বস্তির যে ব্লকে থাকতেন সেখানে ৩০০ ঘর ও ৯০টি দোকান রয়েছে। করোনারবিস্তার ঠেকাতে ব্যাপক ঘনবসতিপূর্ণ সেই ব্লক বর্তমানে বন্ধ করে দেয়া হয়েছে। এশিয়ার বৃহত্তম মুম্বাইয়ের ধারাবি বস্তিতে ১০ লাখের বেশি মানুষের বসবাস। এ বস্তিরপ্রতি বর্গকিলোমিটারে মানুষের ঘনত্ব ২ লাখ ৮০ হাজার; যা যুক্তরাষ্ট্রের নিউইয়র্ক শহরের চেয়ে তিনগুণ বেশি। দেশটির চিকিৎসকরা সতর্ক করে বলেছেন, ভারতেরঅসংখ্য বস্তির একটিতেও যদি করোনার স্থায়ী প্রাদুর্ভাব শুরু হয়; তাহলে পরিস্থিতি একেবারে নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে যাবে। কারণ ভারতের অধিকাংশ বস্তিতে স্যানিটেশনএবং বিশুদ্ধ পানির সুব্যবস্থা নেই। এছাড়া হাজার হাজার মানুষ গাদাগাদি করে সেখানে জীবন-যাপন করেন। এসব বস্তিতে সামাজিক দূরত্ব শারীরিক কিংবা অর্থনৈতিকভাবেবজায় রাখা প্রায় অসম্ভব। ভারতে লকডাউন না মা

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ