সর্বশেষ

হাজার কোটি টাকা পরিশোধ করেছে গ্রামীণফোনের

 

আদালতের নির্দেশনা অনুযায়ী বাংলাদেশি টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশন বিটিআরসি-কে এক হাজার কোটি টাকা দিয়েছে মোবাইল সেবাদানকারী প্রতিষ্ঠান গ্রামীণফোন।

ফেসবুকের ভেরিফায়েড পেইজে এক স্ট্যাটাসে টাকা পাওয়ার খবর নিশ্চিত করেছেন ডাক ও টেলিযোগাযোগমন্ত্রী মোস্তফা জব্বার।

নিজের স্ট্যাটাসে মিস্টার জব্বার লিখেছেন, “সুখবরটা পেলামই। গ্রামীণফোন এক হাজার কোটি টাকা প্রদান করেছে।”

এর আগে এক বিবৃতে গ্রামীণফোন জানায়, রবিবার তারা আদালতের নির্দেশনা মেনে বিটিআরসি-কে এক হাজার কোটি টাকা দেবে তারা।

এসব পদক্ষেপের মধ্যে আছে অনাপত্তিপত্র না দেয়া, লাইসেন্স বাতিলের বিষয়ে কারণ দর্শানোর নোটিশ, নম্বর সিরিজ রিসাইকেল করার অনুমোদন না দেয়া এবং প্রতিষ্ঠানটিতে একজন প্রশাসক নিয়োগেরও হুমকী দেয়া।

গ্রামীণফোন বলছে, এসব কারণে ভোক্তারা তাদের ওপর আস্থা হারিয়েছে এবং বিনিয়োগকারীরা আগ্রহ হারিয়েছে।

টেলিযোগাযোগ কর্তৃপক্ষ বিটিআরসির দাবি, গ্রামীনফোন এবং রবি, এই দুইটি টেলিকম কোম্পানির কাছে ২০ বছরে সাড়ে ১৩ হাজার কোটি টাকা বকেয়া রয়েছে সংস্থাটির।

এর মধ্যে গ্রামীণফোনের কাছে পাওনা ১২ হাজার ৫৭৯ কোটি ৯৫ লাখ টাকা এবং রবির কাছে ৮৬৭ কোটি ২৩ লাখ টাকা পাওনা রয়েছে বলে জানিয়েছে বিটিআরসি।

যদিও মোবাইল কোম্পানি দুটি বলেছে, টাকার অংক নিয়ে তাদের আপত্তি রয়েছে।

এরকম প্রেক্ষাপটে গত বৃহস্পতিবার গ্রামীণফোনকে সোমবারের মধ্যে এক হাজার কোটি টাকা পরিশোধের আদেশ দেয় সুপ্রিমকোর্টের আপিল বিভাগ।

সময়সীমা শেষ হওয়ার একদিন আগেই, অর্থাৎ রবিবারের মধ্যে গ্রামীণফোন এই পরিমান অর্থ বিটিআরসিকে দেবে বলে জানায়।

কিন্তু টাকা জমা দেয়ার পর গ্রামীণফোনের উপর থেকে নিষেধাজ্ঞাগুলি শিথিল করা হবে কি না, জানতে চাইলে বিটিআরসি’র ভাইস চেয়ারম্যান সুব্রত রায় মৈত্র এর আগে বিবিসিকে বলেছিলেন, “আগে টাকাটা তারা জমা দিক, আমরা আদালতের পূর্ণ আদেশ পাই, তারপর দেখব।
সূত্র :বিবিসি

50% LikesVS
50% Dislikes
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ